তৃতীয় দিন শেষে ৮৩ রানের লিড পেল বাংলাদেশ


চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ইনিংসে রবিবার (২৮ নভেম্বর) ব্যাট হাতে শুরুটা ভালো করতে পারেনি মুমিনুল বাহিনী। তৃতীয় দিন শেষে ১৯ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রান তুলেছে বাংলাদেশ। ফলে টাইগাররা ৮৩ রানের লিড পেয়েছে। উইকেট অপরাজিত আছেন মুশফিক ১২ ও ইয়াসির ৮ রান। আগামীকাল তারা দুজন স্কোর বোর্ডে কত রান তুলতে সক্ষম হন তা দেখতে মুখিয়ে আছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।

এদিন ৪৪ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে টাইগাররা। কিন্তু দলীয় ১৪ রানে হঠাৎ করে যেন ছন্দপতন। শাহীন আফ্রিদির জোড়া আঘাতে আউট হন সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্ত। ১ রান করে ফিরেন সাদমান। শান্ত রানের খাতা খোলার আগেই আউট হন। সাদমান-শান্তর পর সাজঘরে ফিরেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। হাসান আলীর লেন্থ বলে মিডউইকেটে আজহার আলীর দুর্দান্ত ক্যাচে ফেরেন রানের খাতা খোলার আগেই। এরপর লড়াই করার আভাস দিয়ে আউট হন সাইফ হাসান। তিনি ১৮ রান করেন। এরপর দলের হাল ধরেন মুশফিক।

এদিকে চট্টগ্রাম টেস্টে তৃতীয় দিন বল হাতে বেশ দাপটে খেলেছে টাইগাররা। এদিন স্পিনার তাইজুল ইসলামের নৈপুণ্যে ৪৪ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। আর তৃতীয় দিন ২৮৬ রানে গুটিয়ে যায় পাকিস্তান। এছাড়া শুক্রবার(২৬ নভেম্বর) প্রথম দিন টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে ৪৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। এরপর দলের বিপদে ব্যাট হাতে রানের চাকা সচল রাখেন লিটন দাস ও মুশফিকুর রহিম। কিন্তু চট্টগ্রামে দ্বিতীয় দিন তারা দুজন আউট হবার পর দলের হাল ধরেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কিন্তু সর্তীথদের আসা যাওয়ার মিছিলে ইনিংস বড় করতে পারেননি তিনি। ৬৮ বলে ছয়টি চার হাঁকিয়ে ৩৮ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। ফলে ১১৪.৪ ওভারে ৩৩০ রান তুলতে সক্ষম হয় টাইগাররা।

গত শুক্রবার(২৬ নভেম্বর) প্রথম দিন টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে ৪৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। এরপর দলের বিপদে ব্যাট হাতে রানের চাকা সচল রাখেন লিটন দাস ও মুশফিকুর রহিম। কিন্তু চট্টগ্রামে দ্বিতীয় দিন তারা দুজন আউট হবার পর দলের হাল ধরেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কিন্তু সর্তীথদের আসা যাওয়ার মিছিলে ইনিংস বড় করতে পারেননি তিনি। ৬৮ বলে ছয়টি চার হাঁকিয়ে ৩৮ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি।

এছাড়া প্রথম দিন লিটন ১১৩ ও মুশফিক ৮২ রানে অপরাজিত ছিলেন। দ্বিতীয় মাঠে নামার পর তারা বড় সংগ্রহের দিন এগোবে এমনই ভেবে ছিল ভক্তরা। কিন্তু তা হল না। সকালে শুরুতে হাসান আলীর বলে এলবিডব্লিউর শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেন লিটন। কিন্তু প্রথমে আম্পায়ার আউট না দিলে রিভিউ নেন পাকিস্তানের দলপতি বাবর আজম। এরপর টাইগার এ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের রক্ষা হয়নি। লিটন ১ রান যোগ করেন দ্বিতীয় দিন। তিনি ২৩৩ বলে ১১টি চার ও ১টি ছয়ে ১১৪ রান করে আউট হন। লিটন আউট হলে ভেঙে যায় পঞ্চম উইকেটে মুশফিকের সঙ্গে গড়া ৪২৫ বলে ২০৬ রানের জুটি। এছাড়া মুশফিক শতক থেকে ১৮ রান দূরে থেকে দ্বিতীয় দিন শুরু করেছিলেন। কিন্তু তিনি ৯ রান যোগ করে ফাহিম আশরাফের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন। আম্পায়ার আউট দিলে মুশফিক রিভিউ নেন। কিন্তু লাভ হয়নি। ২২৫ বলে ১১টি চারে ৯১ রান করেকরে আউট হন তিনি।

এসএইচ



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *