বসুন্ধরাকে ফিফা প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন – Bhorer Kagoj


ঘরের মাঠে প্রিমিয়ার লিগে ফের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বসুন্ধরা কিংস। গত ৯ আগস্ট বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শেখ জামালকে ২-০ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা নিজেদের করে নেয় স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজনের শিষ্যরা। এর আগে ২০১৮-১৯ মৌসুমে ঘরোয়া ফুটবলের শীর্ষ পর্যায়ে প্রথমবার এসেই লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বসুন্ধরা। কিন্তু গত বছর করোনার তাণ্ডব শুরু হলে লিগ পরিত্যক্ত হয়। এ বছর ফের লিগের শিরোপা লুফে নিয়েছে অস্কার ব্রুজন শিষ্যরা। তাই বসুন্ধরার এমন ধারাবাহিক শিরোপা জয়ে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা ফিফার প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের বরাবর লেখা চিঠিতে অভিনন্দন বার্তা দিয়েছেন ফিফা প্রেসিডেন্ট। এ বিষয় নিজেদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে সেই চিঠি পোস্ট করে বসুন্ধরা কিংস লিখেছে, ‘আমাদের কঠোর পরিশ্রমের ফল, যার জন্য এতদিনের অপেক্ষা। অভিনন্দন বার্তার জন্য ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনোকে অসংখ্য ধন্যবাদ। বসুন্ধরা কিংস আজ গর্বিত।’

কাজী সালাউদ্দিনকে পাঠানো চিঠিতে ইনফান্তিনো লিখেছেন, ‘প্রিয় প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশের ২০২১ সালের চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় বসুন্ধরা কিংসকে আমার পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাবেন। এই শিরোপা নিশ্চিতভাবেই কঠোর পরিশ্রমের ফল। গুরুত্বপূর্ণ এই অর্জনে ক্লাবের সবাই গর্বিত হতে পারে।’

বসুন্ধরা কিংসকে অভিবাদন বার্তাটি পৌঁছে দেয়ার জন্য সালাউদ্দিনকে অনুরোধ করেছেন ইনফান্তিনো। তিনি লিখেছেন, ‘আমি তোমার কাছে কৃতজ্ঞ থাকব, যদি আমার পক্ষ থেকে এই অর্জনের সঙ্গে জড়িত সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন পৌঁছে দাও।’

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের বরাবর লেখা চিঠিতে অভিনন্দন বার্তা দিয়েছেন ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো।

কাজী সালাউদ্দিনকে বাংলাদেশ ফুটবলের সার্বিক উন্নয়নের কৃতিত্ব দিয়ে ইনফান্তিনো লিখেছেন, ‘আন্তর্জাতিক ফুটবল কমিউনিটির পক্ষ থেকে আমি তোমাকে ও তোমার ফেডারেশনকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। বাংলাদেশ ফুটবল ও এই অঞ্চলে খেলাটির প্রসার ও উন্নতিতে তোমার অবদান অনস্বীকার্য। খুব শিগগিরই তোমার সঙ্গে দেখা হবে।

এদিকে এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি) কাপ টুর্নামেন্টে অংশ নিতে বর্তমানে মালদ্বীপে অবস্থান করছে বসুন্ধরা কিংসের খেলোয়াড়রা। গত ১২ আগস্ট দিবাগত রাতে কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে মালদ্বীপ পৌঁছেছে অস্কার ব্রুজন শিষ্যরা। সেখানে পৌঁছেই করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করতে হয়েছে তাদের। খুশির খবর হলোÑ দলটির খেলোয়াড় ও কোচসহ সবারই নেগেটিভ রিপোর্ট হাতে পেয়েছে। যেহেতু সবাই করোনামুক্ত তাই অনুশীলনে আর কোনো বাধা নেই।
এছাড়া করোনা পজেটিভ হওয়ায় দলের সঙ্গে মালদ্বীপ যেতে পারেননি ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলম সবুজ। আর ব্যাক পেইনের জন্য নবাব ও চোটের জন্য মতিন মিয়া দলের সফরসঙ্গী হতে পারেননি।

এদিকে এএফসি কাপে ‘ডি’ গ্রুপে ৩টি ম্যাচ খেলবে বসুন্ধরা। এই গ্রুপে আরো রয়েছে ভারতের মোহনবাগান ও বেঙ্গালুরু এফসি এবং মালদ্বীপের মাজিয়া স্পোর্টস এন্ড রিক্রিয়েশন ক্লাব ও ইগলস ক্লাবের মধ্যে প্লে-অফে জয়ী দল। ১৫ আগস্ট মালে স্টেডিয়ামে প্লে-অফের ম্যাচ। প্লে-অফ শেষে ১৮ আগস্ট গ্রুপপর্বের প্রথম ম্যাচে বসুন্ধরার প্রতিপক্ষ মালদ্বীপের মাজিয়া স্পোর্টস এন্ড রিক্রিয়েশন ক্লাব। প্লে-অফে জয়ী দলের সঙ্গে ২১ ও ২৪ আগস্ট মোহনবাগানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা।

ডি-আরআর



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *