নাবিল-শহীদের বোলিং তোপে স্বরূপে ফিরল রূপগঞ্জ – শেয়ার বিজ


ক্রীড়া ডেস্ক: গত কয়েক ম্যাচে নিজেদের ঠিক মেলে ধরতে পারেনি লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। তবে বুধবার ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগে (ডিপিএল) দশম রাউন্ডের ম্যাচে স্বরূপে ফিরেছে দলটি। এদিন বল হাতে রীতিমতো আগুন ছোটান নারায়ণগঞ্জের দলটির স্পিনার নাবিল সামাদ ও পেসার মোহাম্মদ শহীদ। শেষ পর্যন্ত তাদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের ওপর ভর করে পারটেক্স স্পোর্টিং ক্লাবকে ২১ রানে হারিয়েছে।

বিকেএসপির ৪ নম্বর মাঠে বুধবার আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে রূপগঞ্জ তোলে ৬ উইকেটে ১৩১ রান। দলটির হয়ে সর্বোচ্চ ৩০ রান করেন সানজামুল ইসলাম। এদিকে অধিনায়ক নাঈম ইমলাম করেন অপরাজিত ২৯ রান। পরে বল হাতে শুরু থেকেই জাদু দেখান নাবিল সামাদ। অন্য প্রান্তে তাকে দারুণ সঙ্গ পেসার শহীদ। শেষ পর্যন্ত তাদের আটোসাটো বোলিং নৈপুণ্যে পারটেক্স থামে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১১০ রানে। সঙ্গে সঙ্গে দারুণ ২১ রানের জয় ছিনিয়ে মাঠ ছাড়ে রূপগঞ্জ।

আগের মতোই বুধবার রূপগঞ্জের ব্যাটিংয়ের শুরুটা ভাল হয়নি।  দলীয় ১৩ রানের মাথায় ওপেনার মেহেদি মারুফ ফিরে যান সাজঘরে। এদিকে মুক্তার আলিও নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেনি। তিনি ফিরেন মাত্র ১৩ রান করে। দলকে টানতে চেস্টা করেছিলেন আল আমিন ও  সাব্বির রহমান। কিন্তু সেই কাজটি খুব বেশিক্ষণ তারা করতে পারেননি। দশম ওভারের দ্বিতীয় বলে এ জুটি ভাঙে আল আমিনের বিদায়ে। ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ১৬ রান। এর কিছুক্ষণ পরই সাজঘরের পথ ধরেন সাব্বির ১৫ রান করে।

সাব্বির ফিরলেও রূপগঞ্জের হাল ধরেন সানজামুল। এক প্রান্ত আগলে এ অলরাউন্ডার বেশ ধীরেই এগোতে থাকেন। ষষ্ঠ উইকেটে তাকে দারুণ সঙ্গ দেন অধিনায়ক নাঈম ইসলাম। তাদের জুটিতে থেকে মূল্যবান ২৩ রান। শেষ পর্যন্ত সানজামুল ফিরেন ১৭তম ওভারের ৫ম বলে ৩০ রান করে। তবে নাঈম ইসলাম অপরাজিত ছিলেন জাকির আলিকে সঙ্গী করে। তাদের সপ্তম উইকেট জুটিই রূপগঞ্জকে লড়াইয়ের মতো পুঁজি এনে দেন।

মাঝারি মানের পুঁজি নিয়েও বল হাতে শুরু থেকেই দারুণ পারফর্ম করেন রূপগঞ্জের বোলাররা। বিশেষ নাবিল সামাদ ও মোহাম্মদ শহীদ। তারা দুই প্রান্তে ব্যাটসম্যানদের একরকম বেঁধে রাখেন। এর ফলে নিয়মিত সাফল্য পেতে থাকে রূপগঞ্জ। শেষ পর্যন্ত দারুণ এক জয় নিয়েই মাঠে ছাড়ে দলটি।

বুধবার তৃতীয় ওভারেই নাবিল সামাদের হাত ধরে সাফল্য পায় রূপগঞ্জ। তৃতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলে এ স্পিনার ফিরিয়ে দেন হাসানুজ্জামানকে। কিছুক্ষণ পরই দারুণ ফর্মে থাকা জয়রাজ শেখকে রানআউটের ফাঁদে ফেলেন কাজী অনিক। সেই ক্ষত শুকানোর আগে পারটেক্স স্পোটিং শিবিরে আঘাত করেন শহীদ। বেশ দেখে শুনে খেলতে আব্বাস মুসাকে তিনি মেহেদী মারুফের ক্যাচে সাজঘরের পথ দেখান। এরপর ইশারুল ইসলামকে ফিরিয়ে দেন সানজামুল ইসলাম। শেষদিকে অবশ্য নাজমুল হোসেন মিলন (২১ বলে ২১) ও রাজিবুল ইসলাম রূপগঞ্জের মনে ভয় ধরিয়ে দিয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত নারায়াণগঞ্জের দলটির কক্ষপথে ফেরান মিলনকে ফিরিয়ে সেই শহীদ। যে কারণে হাসিমুখেই মাঠে দলটি।

রূপগঞ্চের হয়ে ১৭ রানে ২টি উইকেট নেন মোহাম্মদ শহীদ। এদিকে নাবিল সামাদ ১৩ রানে দখলে নিয়েছেন ১টি উইকেট। এছাড়া সানজামুল ইসলাম, কাজী অনিক ও মুক্তার আলি নেন ১টি করে উইকেট। ব্যাট-বল হাতে দারুণ পারফরম্যান্সের সুবাদে ম্যাচসেরা হয়েছেন সানজামুল ইসলাম।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *